शनिवार, 30 मई 2015

Suspected militants attacked police guard at J&K Bank at Kandoora , Shopian and snatched a Self Loading Rifle (SLR).------------- Daily " Chattan" Srinagar , Saturday, May 30 :------ By:-- Makbool Veeray :

Suspected militants attacked police guard at J&K Bank at Kandoora , Shopian and snatched a Self Loading Rifle (SLR).------------- Daily " Chattan" Srinagar , Saturday, May 30 :------ By:-- Makbool Veeray :

RSS governance in Kashmir would not allow withdrawal of AFSPA in Kashmir,Mufti Saheb! Rather RSS is all set to kill article 370 and intends to make a cent percent Hindu Nation endorsed by you! Palash Biswas

RSS governance in Kashmir would not allow withdrawal of AFSPA in Kashmir,Mufti Saheb!

Rather RSS is all set to kill article 370 and intends to make a cent percent Hindu Nation endorsed by you!


Palash Biswas

In reference to Parikkar's statement that Armed Forces Special Powers Act (AFSPA) was mandatory if the Army had to be deployed in Jammu and Kashmir or any other state for internal security.


The Kashmir Valley rejected BJP and you chose RSS governance for the people of Kashmir,subjected to racial discrimination and repression under AFSPA Umbrella and you say:We will achieve our objectives on AFSPA!Rather RSS is all set to kill article 370 and intends to make a cent percent Hindu Nation endorsed by you!


Ridiculous you might not as you are nothing but the Executive of RSS governance of Fascism in Kashmir.

Yes,we,the People of India demand that AFSPA should be discontinued specifically after Tripura.But your alliance with ABSOLUTE Nagpur based RSS ruling hegemony would not allow it happen,I am afraid. 


It is quite amusing as Mufti betrayed mandate in Kashmir and days after Defence Minister Manohar Parrikar ruled out revocation of AFSPA from Jammu and Kashmir,  Chief Minister,the same Mufti Mohammad Sayeed on Saturday said his government would "achieve its objective" with regard to the controversial Act in the state. "I know everything. I know what to do and what not to do. Whatever we have to do, we will do that," Sayeed told reporters on the sidelines of an inauguration ceremony of an International Buyer-Seller Meet at the SKICC in Srinagar.


Asked about Parikkar's statement that Armed Forces Special Powers Act (AFSPA) was mandatory if the Army had to be deployed in Jammu and Kashmir or any other state for internal security, the chief minister said "whatever our objectives are, we will achieve them". On the AFSPA, PDP-BJP 'agenda for alliance' he said, while both the parties have historically held different views on the AFSPA and need for it in the state at present, the coalition government would examine the need for denotifying the 'disturbed areas' in the state. "This, as a consequence, would enable the Union government to take a final view on the continuation of AFSPA in these areas," the document (agenda) said.

नाचा गम्मत के महत्वपूर्ण कलाकार .... चमरू यादव जी को श्रद्धांजलि .....

   
Nisar Ali
May 30 at 5:53am
 
नाचा गम्मत के 
महत्वपूर्ण कलाकार .... 
चमरू यादव जी को 
श्रद्धांजलि ..... 

० निवास..भुरका (चंपारन) के पास... 
० आयु ... .७० वर्ष ..... 
० फुण्डहर नाच पार्टी में ५० वर्षों से प्रमुख अभिनेता के रूप में सक्रिय ८ हज़ार से ज़्यादा मंचन में हिस्सेदारी ..... 
० नाचा थियेटर में गम्मत गुरू के रूप में सक्रिय सहयोग .... 

लगभग २५ वर्ष पूर्व पैर में घुंघरू के ज़ख्म की वजह से फैले संक्रमण के कारण एक पैर घुटने तक कटवाना पड़ा .... 
उन्होने हिम्मत नही हारी ... 
बैसाखी के सहारे फिर उठ खड़े हुए .... 
नाचा गम्मत चलता रहा .... 

८ वर्ष पश्चात दूसरे पैर में संक्रमण हुआ पैर कटवाना पड़ा .... 
ग़रीबी और असहाय परिस्थितियों ने बुरीे तरह जकड़ लिया .... 

मारक अकेलापन... 
ज़ख़्म से ज़्यादा दर्द देने लगा ... 

बैसाखियों पर शरीर टांग ... 
पैरों के कच्चे ज़ख्मों के साथ ... 
गम्मत का यह "महाबली" कलाकार निकल पड़ा ... 
"गम्मत सफ़र" पर .... 

शीत बसंत..दुखी रामबती..फ़ौजी जुम्मन ख़ान..कोंदा..अनियायी के नियाव..दारू के दुरगत .... 
उनके द्वारा अभिनीत प्रमुख गम्मत रहे ... 
उनके गम्मत मनुष्य के सुख दुख ..समाज सुधार..अंधविश्वास.. कुरीतियों ..जात-पात विषयों पर केन्द्रित रहे .... 

संयुक्त कलाकार सीमिति ने २५ मई २०१५ को हुए उनके असामयिक निधन पर शोकसभा कर श्रद्धांजलि अर्पित की... 

निसार अली..डॉ.आलोक वर्मा.. 
..मिनहाज असद ..नंद कुमार कंसारी..करण ताहिर ख़ान..शेखर नाग..संजय महानंद.. काशी नायक ..नितेश लहरी..टी.के डोंगरे..ग़ालिब सूफ़ी.. 
गौरव मिश्रा आदि इस सभा में मौजूद थे .... 

नाचा थियेटर ने ग्राम मढ़ी(कुंदरू) में नाचा गम्मत कलाकारों की सभा कर शोक श्रद्धांजलि अर्पित की ...परमानंद शास्त्री..के.डी.साहू जितेंद्र वर्मा ..कमल निषाद.. सुखचंद..शीतल पाल..ओंकार.. अजय गंधर्व ..दिनेश आदि मौजूद थे ..... 
कार्पोरेट और सरकारी कला उत्सवबाज़ों ने .... 
गम्मत कलाकारों के बीमारी और मौत पर हमेशा की तरह चुप्पी साध रखी है !!! ...

How Israel Was Busted Nuking Yemen

How Israel Was Busted Nuking Yemen

Posted by Ian Greenhalgh on May 29, 2015

Israel nuked Yemen, period. This is hard fact that has been 100% confirmed. 

…by Jeff Smith, with Gordon Duff and Ian Greenhalgh

By now, every VT reader will be aware that Israel dropped a neutron bomb on Yemen on behalf of their Saudi allies. As well as the readers of VT, a billion Arabs also know this truth, every Arabic media outlet picked up the VT story as have the Russian outlets Pravda, Russia Today and Sputnik News. This story is too big to die, it is worldwide.

Israel nuked Yemen, period. This is hard fact that has been 100% confirmed.

Just watch the video, the scintillating pixels are caused by particles from the nuclear explosion hitting the camera's sensor, there can be no other explanation; note the white hot ball of plasma seen briefly before the huge detonation.

The camera never lies

https://www.youtube.com/watch?feature=player_embedded&v=pVgPKxYVxb0

Until mobile phones with cameras and small video cameras were developed, small florescent lights were used as emergency nuclear explosion/radiation detectors.  Now, phones and CCD video cameras have become dependable "slam dunk" nuclear detectors.

The next few words are the technical explanation of why we are absolutely certain we are dealing with a nuclear event, with no questions whatsoever.  This is information available to all member of the press, the military, the scientific community and the general public.  This means, of course, that anyone in "denial" of our assertion, proven with this much certainty, is defective as to mental function or suffers from moral degeneracy.

The combination of the cameras plastic lens and the photoelectric effect produced in the cameras CCD pick up chip (because it is basically a very large array of photo diodes) allows them to act as very good detectors of high level ionizing radiation. Low level radiation in this case is not of concern because it will not immediately kill you or have long term negative health effects.

fff_156

By simply pointing the camera at an explosive event it will immediately determine if it is nuclear or not. When the camera's CCD pick up chip is overloaded by excess radiation it will pixelize showing white sparkles all over the picture of the fireball or blast image area.

The demonstration video still was taken in Yemen this month.  It is perhaps the best single demonstration image of ionizing radiation hitting a CCD receptor.  It is as perfect a demonstration of a nuclear explosion as detected using mobile phone or CCD camera technology, as explained above, as might be possible.

We are contacting scientists and physicists throughout the Middle east and Ukraine; we are distributing software that will allow us to detect not just nuclear weapons but radioactive threats of all kinds including polonium poisons; we are training teams to collect soil samples; preparing packages to allow medical personnel to screen for radioactive poisoning and we are offering materials for civil defence and decontamination efforts.

There has thus far been zero denial or refutation (other than by wingnuts and conspiracy theorists) of this having been a nuclear event nor has there been any effective denial of the pair of F-16A/Bs shot down over Yemen this week; planes which can only have belonged to Italy, Portugal or Israel, otherwise it came out of the mothballed stockpiles in the US southwest.

Russia speaks out

As stated in Pravda today, the world's scientific community is aghast that 'the Saudis have begun to wipe Yemen off the map', they get straight to the point by telling us that 'shocking video reveals proton bombardment from a neutron bomb' and that  'forbidden strikes have brought about a storm of worldwide protest' and might I add, this wave of protest isn't going to be silenced by a handful of internet trolls and unemployed Haifa housewives.

'Obama has recently offered military assistance to any external threat the rich Arab Gulf States may face'according to Pravda. Russia is not only certain after viewing the evidence, that this is a nuclear attack but they believe that the United States is fully complicit in it; where other sources have cited the Israeli-Saudi nexus, highest level Russian sources believe this irresponsible move is the result of Washington kow-towing to both Saudi Arabia and The Gulf States.

Here come the trolls

There is a truism that one catches the most flak when one is over the target; being attacked by shills, stooges, trolls and other assorted disinfo entities is always a good indicator that one has written something that exposes a truth that the bad guys really don't want people finding out about.

We know that our article exposing the Israeli use of a neuron bomb in Yemen has upset the applecart in Tel-Aviv and elsewhere because we are seeing a slew of videos and posts appearing online attacking VT and ridiculing the Yemeni nuke story.

One video I found particularly objectionable was posted by one of David Icke's sycophantic supporters; a loud-mouthed, obnoxious type who looks like a third Milliband brother shouts at us that Yemen wasn't nuked, that neutron bombs don't exist and warns that VT is a disinfo op. Oh, and just to make sure you know who he is working for, he gets in three or four 'fuck Israel' outbursts.

David Icke personally, has run the other way to get as far away from this nuke issue as he can; while at the same time tasking his pack of attack trolls with attacking VT and the existence of neutron bombs – further confirmation of his disinfo agent status and a clear indicator of who he works for, what agenda he is trying to further. The fact that Icke is tasked with specific assignments such as covering up the nuking of Yemen shows us that he is an active agent.

Personally, I never had any doubt that Icke was a disinfo scumbag, I remember all too well the days in the early 90s when he appeared on the Terry Wogan chat show claiming to be the son of God and wearing a turquoise shellsuit because that colour held some mystical power. Icke has always been full of it and working against the best interests of mankind.

You just outed yourself David, you have made it plain for all to see that you are nothing more than a foetid outlet for the lies and disinfo of Israel. We knew this all along of course, but now we have confirmation. What we have to ask ourselves though is why have they chosen to employ David Icke on this issue, rather strange because the timing makes it very clear that Icke is taking the grubby Shekel to do the bidding of Israel. This has the effect of 'burning' him as an asset – after this his credibility is gone, he is no longer an asset, just a spent, discredited force. But why burn one of your best assets?

The answer is both simple and gratifying – VT's breaking of the Yemeni nuke story has done real damage, we hit the mark and drew blood; they have responded by turning one of their major assets against us with full knowledge this will burn the asset; this shows just how much they want to keep this nuclear warfare a secret.

Thank you so much, you just handed us a gift from heaven; proof positive that Israel really doesn't want people to know they nuked Yemen; hence they have unleashed their moronic hordes of stooges, shills, trolls, whatever name you prefer to use for these lying pieces of faecal matter in human form; these disgusting, completely amoral creatures who gladly take the Shekel as reward for their attempts to run cover for the mass murder of innocent people and the use of horrific weapons of mass destruction to commit war crimes.

It is too late to put the cat back in the box, the word is out – Israel is using nukes to kill innocent civilians.

Where are the other big names in the so-called 'truth movement'? Where are Alex Jones and Christopher Bollyn? They are certainly nowhere near this oh so important nuke issue and you can bet your last cent they won't be going near it unless it is to spread disinfo and tell outright lies.

Note that all these nay-sayers have no credentials other than being pro-Israeli or suspiciously aligned to groups such as the ADL, SPLC or AIPAC which are nothing more than fronts for Israeli interests.

Take note of the reaction to this very serious issue of the Israeli use of nukes. Anyone who tries to claim there was no nuke dropped on Yemen or apply a derogatory label to those who seek to get the truth about this most heinous of war crimes out to a wide audience must be viewed as a stooge for Israel.

The worldwide spread of the true story of Israel's nuking of Yemen has got the perpetrators very worried; the truth is one of the things these people fear most.


Appendix I

scintillator is a material that exhibits scintillation — the property of luminescence when excited by ionizing radiation. Luminescent materials, when struck by an incoming particle, absorb its energy and scintillate, (i.e., re-emit the absorbed energy in the form of light). Sometimes, the excited state is metastable, so the relaxation back down from the excited state to lower states is delayed (necessitating anywhere from a few nanoseconds to hours depending on the material): the process then corresponds to either one of two phenomena, depending on the type of transition and hence the wavelength of the emitted optical photon: delayed fluorescence or phosphorescence, also called after-glow. 

A scintillation detector or scintillation counter is obtained when a scintillator is coupled to an electronic light sensor such as a photomultiplier tube (PMT), photo-diode, or silicon photomultiplier. PMT's absorb the light emitted by the scintillator and re-emit it in the form of electrons via the photoelectric effect. The subsequent multiplication of those electrons (sometimes called photo-electrons) results in an electrical pulse which can then be analyzed and yield meaningful information about the particle that originally struck the scintillator. Vacuum photo-diodes are similar but do not amplify the signal while silicon photo-diodes, (CCD cameras) on the other hand, detect incoming photons by the excitation of charge carriers directly in the silicon. Silicon photo-multipliers consist of an array of photo-diodes which are reverse-biased with sufficient voltage to operate in avalanche mode, enabling each pixel of the array to be sensitive to single photons.

History

The first device which used a scintillator was built in 1903 by Sir William Crookes and used a ZnS screen.The scintillations produced by the screen were visible to the naked eye if viewed by a microscope in a darkened room; the device was known as a spinthariscope. The technique led to a number of important discoveries. Scintillators gained additional attention in 1944, when Curran and Baker replaced the naked eye measurement with the newly developed PMT. This was the birth of the modern scintillation detector.

Applications for scintillators

Scintillators are used by the American government as Homeland Security radiation detectors. Scintillators can also be used in neutron and high energy particle physics experiments, X-ray security, nuclear cameras, computed tomography and gas exploration. Other applications of scintillators include CT scanners and gamma cameras in medical diagnostics, and screens in older style CRT computer monitors and television sets.

The use of a scintillator in conjunction with a photomultiplier tube or a CCD camera finds wide use in hand-held survey meters used for detecting and measuring radioactive contamination and monitoring nuclear material. Scintillators generate light in fluorescent tubes, to convert the ultra-violet of the discharge into visible light. Scintillation detectors are also used in the petroleum industry as detectors for Gamma Ray logs. ( Note small compact fluorescent light bulbs can also be used in an emergency to detect radiation bursts from a nuclear event. They will flash or glow under radiation exposure).

————————————————————————————————————————————————————————————————————————————————————————-

 

Plastic scintillators and the CCD camera, cell phone connection.

Plastic scintillators are the most common type of radiation detectors found in everyday CCD video cameras, cell phone cameras and home security cameras. With little or no modification at all they can be used as simple radiation detectors for emergency self protection from nuclear blasts and high background radiation levels or to document nuclear detonations. The combination of the cameras plastic lens and the photoelectric effect produced in the cameras CCD pick up chip (because it is basically a very large array of photo didoes) allows them to act as very good detectors of high level ionizing radiation. Low level radiation in this case is not of concern because it will not immediately kill you or have long term negative health effects.
By simply pointing the camera at an explosive event it will immediately determine if it is nuclear or not. When the cameras CCD pick up chip is overloaded by excess radiation it will pixelize showing white sparkles all over the picture of the fireball or blast image area. If you are looking to protect yourself  from high level ionizing radiation produced by depleted uranium anti tank rounds or after a nuclear blast this will work. For lower level radiation effects usually just putting black electrical tape over the cameras lens is sufficient enough to detect lower radiation levels. Once the background radiation level has drooped off after an explosion. Usually after about 3 hours or more excluding ground zero where levels will remain higher for a longer period of time the  CCD cameras may not be sensitive enough to detect these lower levels of radiation and a better detector will be required. However for emergency use this this process altho crude will work.

If you have an Android or Apple smart phone there are several APPS that will allow you to use your phone as a simple radiation detector/ Geiger counter. Some work better than others and several are actually fake or toy apps so user be ware make sure the APP really works.

 

Types of scintillators

Plastic scintillators

The term "plastic scintillator" typically refers to a scintillating material in which the primary fluorescent emitter, called a fluor, is suspended in the base, a solid polymer matrix. While this combination is typically accomplished through the dissolution of the fluor prior to bulk polymerization, the fluor is sometimes associated with the polymer directly, either covalently or through coordination, as is the case with many Li6 plastic scintillators.  

Polyethylene naphthalate  has been found to exhibit scintillation by itself without any additives and is expected to replace existing plastic scintillators due to higher performance and lower price.

The advantages of plastic scintillators include fairly high light output and a relatively quick signal, with a decay time of 2–4 nanoseconds, but perhaps the biggest advantage of plastic scintillators is their ability to be shaped, through the use of molds or other means, into almost any desired form with what is often a high degree of durability. Plastic scintillators are known to show light output saturation when the energy density is large ( Birks' Law).

Bases

The most common bases are the aromatic plastics, polymers with aromatic rings as pendant groups along the polymer backbone, amongst which polyvinyltoluene (PVT) and polystyrene (PS) are the most prominent. While the base does fluoresce in the presence of ionizing radiation, its low yield and negligible transparency to its own emission make the use of fluors necessary in the construction of a practical scintillator.

Aside from the aromatic plastics, the most common base is polymethylmethacrylate (PMMA), which carries two advantages over many other bases: high ultraviolet and visible light transparency and mechanical properties and higher durability with respect to brittleness.

The lack of fluorescence associated with PMMA is often compensated through the addition of an aromatic co-solvent, usually naphthalene. A plastic scintillator based on PMMA in this way boasts transparency to its own radiation, helping to ensure uniform collection of light. Other common bases include polyvinyl xylene (PVX) polymethyl, 2,4-dimethyl, 2,4,5-trimethyl styrenes, polyvinyl diphenyl, polyvinyl naphthalene, polyvinyl tetrahydronaphthalene, and copolymers of these and other bases.

Fluors.

Also known as luminophors, these compounds absorb the scintillation of the base and then emit at larger wavelength, effectively converting the ultraviolet radiation of the base into the more easily transferred visible light. Further increasing the attenuation length can be accomplished through the addition of a second fluor, referred to as a spectrum shifter or converter, often resulting in the emission of blue or green light.

Gas.

Gaseous scintillators consist of nitrogen and the noble gases heliumargonkrypton, and xenon, with helium and xenon receiving the most attention. The scintillation process is due to the de-excitation of single atoms excited by the passage of an incoming particle. This de-excitation is very rapid (~1 ns), so the detector response is quite fast.

Coating the walls of the container with a wavelength shifter is generally necessary as those gases typically emit in the ultraviolet and PMTs respond better to the visible blue-green region. In nuclear physics, gaseous detectors have been used to detect fission fragments or heavy charged particles.

Glass.

The most common glass scintillators are cerium-activated lithium or boron silicates. Since both lithium and boron have large neutron cross-sections, glass detectors are particularly well suited to the detection of thermal (slow) neutrons. Lithium is more widely used than boron since it has a greater energy release on capturing a neutron and therefore greater light output.

Glass scintillators are however sensitive to electrons and γ rays as well (pulse height discrimination can be used for particle identification). Being very robust, they are also well-suited to harsh environmental conditions. Their response time is ≈10 ns, their light output is however low, typically ≈30% of that of anthracene.

Response to various radiations

Heavy ions

Scintillation counters are usually not ideal for the detection of heavy ions for three reasons:

  1. the very high ionizing power of heavy ions induces quenching effects which result in a reduced light output (e.g. for equal energies, a proton will produce 1/4 to 1/2 the light of an electron, while alphas will produce only about 1/10 the light;
  2. the high dE/dx also results in a reduction of the fast component relative to the slow component, increasing detector dead-time;
  3. strong non-linearities are observed in the detector response especially at lower energies.

The reduction in light output is stronger for organics than for inorganic crystals. Therefore, where needed, inorganic crystals, e.g. CsI(Tl), ZnS(Ag) (typically used in thin sheets as α-particle monitors), CaF2(Eu), should be preferred to organic materials. Typical applications are α-survey instrumentsdosimetry instruments, and heavy ion dE/dx detectors. Gaseous scintillators have also been used in nuclear physics experiments.

Electrons

The detection efficiency for electrons is essentially 100% for most scintillators. But because electrons can make large angle scatterings (sometimes backscatterings), they can exit the detector without depositing their full energy in it. The back-scattering is a rapidly increasing function of the atomic number Z of the scintillator material.

Organic scintillators, having a lower Z than inorganic crystals, are therefore best suited for the detection of low-energy (< 10 MeV) beta particles. The situation is different for high energy electrons: since they mostly lose their energy by bremsstrahlung at the higher energies, a higher-Z material is better suited for the detection of the bremsstrahlung photon and the production of the electromagnetic shower which it can induce.

Gamma rays

High-Z materials, e.g. inorganic crystals, are best suited for the detection of gamma rays. The three basic ways that a gamma ray interacts with matter are: the photoelectric effectCompton scattering, and pair production. The photon is completely absorbed in photoelectric effect and pair production, while only partial energy is deposited in any given Compton scattering.

The cross section for the photoelectric process is proportional to Z5, that for pair production proportional to Z2, whereas Compton scattering goes roughly asZ. A high-Z material therefore favors the former two processes, enabling the detection of the full energy of the gamma ray.

Neutrons

Since the neutron is not charged it does not interact via the Coulomb force and therefore does not ionize the scintillation material. It must first transfer some or all of its energy via the strong force to a charged atomic nucleus. The positively charged nucleus then produces ionizationFast neutrons (generally >0.5 MeV) primarily rely on the recoil proton in (n,p) reactions; materials rich in hydrogen, e.g. plastic scintillators, are therefore best suited for their detection. 

Slow neutrons rely on nuclear reactions such as the (n,γ) or (n,α) reactions, to produce ionization. Their mean free path is therefore quite large unless the scintillator material contains nuclides having a high cross section for these nuclear reactions such as 6Li or 10B. Materials such as LiI(Eu) or glass silicates are therefore particularly well-suited for the detection of slow (thermal) neutrons.

Ian Greenhalgh

Ian Greenhalgh is a photographer and historian with a particular interest in military history and the real causes of conflicts.

His studies in history and background in the media industry have given him a keen insight into the use of mass media as a creator of conflict in the modern world.

His favored areas of study include state sponsored terrorism, media manufactured reality and the role of intelligence services in manipulation of populations and the perception of events.

http://www.veteranstoday.com/2015/05/29/how-israel-was-busted-nuking-yemen/

https://www.youtube.com/watch?feature=player_embedded&v=Y2MEN4-49dM

__._,_.___

There were both national and international conspiracies involved in the assassination of President Zia. As noted in the report, Col Oli said, ‘আমার জানা তথ্য মতে, শহীদ জিয়াউর রহমান দেশী ও আন্তর্জাতিক চক্রান্তে নিহত হন।’

Isha Khan <bdmailer@gmail.com>


The heading of the report misses out the important assertion in the article that there were both national and international conspiracies involved in the assassination of President Zia. As noted in the report, Col Oli said, 'আমার জানা তথ্য মতে, শহীদ জিয়াউর রহমান দেশী ও আন্তর্জাতিক চক্রান্তে নিহত হন।' 

​​Weekly Sunday, Calcutta, 18 September, 1988 said:

 "Mr. Subramaniam Swamy, Janata Dal MP, a close associate of Morarji Desai said that Rameswar Nath Kao, former Chief of RAW, and Shankaran Nair upset about Sheikh Mujib's assassination chalked a plot to kill General Ziaur Rahman. However, when Morarji Desai came into power in 1977 he was indignant at RAW's role in Bangladesh and ordered operations in Bangladesh to be called off; but by then RAW had already gone too far. General Zia continued to be in power for quite some time but he was assassinated after Indira Gandhi returned to power, though she denied her involvement in his assassination
​".


It can be asserted that RAW coordinated and implemented the assassination plot through Ershad, directly trained by them at Dehradun Military Academy, and many other agents.
​ ​
Col Oli did not come forward with the proofs, he says he has or had. He did not specify what international plot was involved. 
'জিয়া হত্যার সঙ্গে এরশাদ সরাসরি জড়িত': একান্ত সাক্ষাৎকারে কর্নেল অলি



তিনি বলেন, 'সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সরাসরি জড়িত ছিল, এ নিয়ে অনেক তথ্য প্রমাণাদি পেয়েছিলাম। মেজর জেনারেল আবুল মঞ্জুর, লে. কর্নেল মাহাবুব ও লে. কর্নেল মতিউর রহমানকে এরশাদের নির্দেশে খুবই ঠাণ্ডামাথায় গুলি করে হত্যা করা হয়। কারণ তারা বেঁচে থাকলে মূল ষড়যন্ত্রকারীর নাম প্রকাশ পেত।'

সাবেক এই বিএনপি নেতা বলেন, 'শহীদ জিয়ার হত্যাকাণ্ডকে পুঁজি করে আরও ১১ জন মুক্তিযোদ্ধা অফিসারকে ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলানো হয়। এদের মধ্যে অনেকেই শহীদ জিয়ার হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে আদো জড়িত ছিলেন না। তিনি (এরশাদ) রাষ্ট্রপতি হওয়ার জন্য যারা পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়াতে পারেন তাদেরকে চিরতরে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দেন। তখন অনেকেই চেষ্টা করেছেন ১১ জনকে ফাঁসি না দিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড যেন দেওয়া হয়। এই ১১ জন অফিসার বেঁচে থাকলেও হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনাকারীর নাম প্রকাশ পেত।'

কর্নেল অলি আরও বলেন, 'এ সব কিছু বিশ্লেষণ করলে বুঝতে কারো কষ্ট হবে না যে, সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ অত্যন্ত সুকৌশলে, সুপরিকল্পিতভাবে তার পথের কাঁটাগুলো সরিয়ে দিয়েছিলেন। এ ছাড়াও বিভিন্ন সেনানিবাসে চাকরিরত ভিন্ন পদে অফিসারদের বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়। অতঃপর তিনি তার অনুগতদের নিয়ে সামরিক বাহিনী ওপর তার একক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করেন।'

'জিয়া হত্যাকাণ্ডের পর বিএনপি দুইবার পূর্ণমেয়াদে ক্ষমতায় থাকার পরও কেন এ হত্যাকাণ্ডের বিচার হয়নি?' —এমন প্রশ্ন করা হলে অলি আহমদ বলেন, 'বিএনপিকে আমার পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময় তাগাদা দিয়েছি। কেন তার (এরশাদ) বিচার হয়নি এর জবাব আমরা কাছে নেই। আসলে প্রকৃত পক্ষে কোনো সরকারই তার বিচার করার ব্যাপারে কতটুকু আন্তরিক ছিল তা প্রশ্নবিদ্ধ।'

Full Text:

http://www.thereport24.com/article/107543/index.html

__._,_.___

মওদুদের ফোনালাপ নিয়ে তোলপাড়

মওদুদের ফোনালাপ নিয়ে তোলপাড় 



সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইউটিউবে দলের সিনিয়র নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও সাবেক ছাত্রদল নেতা বজলুল করীম চৌধুরী আবেদের ফোনালাপ নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে বিএনপিতে। দলের অধিকাংশ নেতা-কর্মীই মনে করেন, জিয়ার আদর্শ থেকে বিএনপি আজ লক্ষ্যচ্যুত। বিএনপিকে নতুনভাবে ঘুরে দাঁড়াতে হবে। জিয়ার ১৯ দফাকে সামনে রেখে দলে আমূল সংস্কার আনতে হবে। এ ছাড়া জামায়াত বর্জন প্রশ্নেও সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় এসেছে। 

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও আবেদের ফোনালাপেও জামায়াত ছাড়ার প্রসঙ্গটি উঠে এসেছে। বিএনপির নেতা-কর্মীরা মনে করেন, বাংলাদেশকে একটি সমৃদ্ধশালী, উন্নত গণতন্ত্রের দেশ হিসেবে গড়ে তুলতেই সময়োপযোগী ১৯ দফা কর্মসূচি দিয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। সময়ের প্রবাহে ওই ১৯ দফা থেকে অনেক দূরে সরে এসেছে বিএনপি। কেন্দ্রীয় পর্যায়ের অনেক নেতার মনেও নেই সেই ১৯ দফা। চলমান দলীয় রাজনীতির প্রতি নেতা-কর্মীরা দৃশ্যত নিষ্ঠাবান থাকলেও দলের পক্ষ থেকে ১৯ দফার বিষয়ে কোনো চর্চা না থাকায় দিন দিন সেই প্রতিষ্ঠাকালীন মৌলিক বিষয়গুলো কার্যত ভুলতে বসেছেন নেতা-কর্মীরা।


রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, জন্মের তিন যুগ পেরিয়ে এসে দলটি বহু মতের সম্মিলন ঘটানোর সামর্থ্য তো হারিয়েছেই, উপরন্তু দলের ঐক্য বা অভ্যন্তরীণ সংহতি এখন বড় ধরনের প্রশ্নের মুখে। বিশেষ করে, এক-এগারোর পর বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃত্বে মতের অমিল, পরস্পর সন্দেহ ও দ্বন্দ্ব এমন পর্যায়ে ঠেকেছে যে, দলটি সাংগঠনিকভাবে চরম নাজুক অবস্থায় পড়েছে। সেই নাজুক অবস্থা এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি দলটি। 

এ কারণেই দুই বছরে ফলাফলশূন্য আন্দোলনে মামলা-হামলা, গুম, খুন কিংবা গ্রেফতারের খড়গ নেমে এসেছে দলের বহু নেতা-কর্মীর ওপর। দলের সিনিয়র নেতাদের বড় একটি অংশই মনে করেন, বর্তমান সরকারের দুই মেয়াদে রাজনৈতিকভাবেও বিএনপি অনেক ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যার খেসারত দিতে হচ্ছে নেতা-কর্মীদের। 

এ ছাড়া ঢাকা সফরকালে ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির সঙ্গে খালেদা জিয়ার সাক্ষাৎ না করা, বিগত ৫ জানুয়ারি সংসদ নির্বাচন বয়কট করা, নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রীর ফোনে বিএনপি চেয়ারপারসনের সাড়া না দেওয়া, পুত্রশোকে কাতর খালেদাকে সমবেদনা জানাতে যাওয়া প্রধানমন্ত্রীকে গুলশান কার্যালয়ের সামনে থেকে ফিরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তও চরম ভুল ছিল। 

এ প্রসঙ্গে গতকাল রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, জিয়ার আদর্শ থেকে বিএনপি সরে গেছে- এটা সম্পূর্ণ না হলেও অনেকাংশে ঠিক। জিয়া দুর্নীতিমুক্ত, কলুষমুক্ত রাষ্ট্র গড়েছেন। কিন্তু বর্তমান বিএনপিতে এর অভাব রয়েছে। তার সততা, নিষ্ঠাও আজ নেতা-কর্মীদের মধ্যে অনুপস্থিত। তার যে মন্ত্রিসভা ছিল, সে রকম মন্ত্রিসভা আর কেউই করতে পারেননি। এখন আমাদের উচিত হবে, জিয়ার ১৯ দফাকে সামনে রেখে এগিয়ে যাওয়া। 

দলের যুগ্ম-মহাসচিব মো. শাহজাহান বলেন, যত বাধাই আসুক, বিএনপি তার লক্ষ্য থেকে সরবে না। সময়ের বাঁকে বাঁকে দলে কিছুটা বিচ্যুতি এলেও শহীদ জিয়ার মূল দর্শন থেকে আমরা দূরে সরে যাইনি। নইলে ইতিহাসে নজীরবিহীন গুম, খুন, হামলা-মামলা, দমন-পীড়নের পরও বিএনপি আজ টিকে আছে কীভাবে? এখন মূল কাজ হচ্ছে, দলের মূল ধারা ঠিক রেখে বিএনপিকে নতুনভাবে সাজানো। ১৯ দফার আলোকে বিএনপিকে জাতির সামনে তুলে ধরা।

ইউটিউবের সেই আলোচিত বক্তব্য : গত ৮ মে দুপুরে ব্যারিস্টার মওদুদের সঙ্গে কথা হয় বজলুল করীম চৌধুরী আবেদের। এ ফোনালাপটি গতকাল পর্যন্ত ৬৮২ জন শেয়ার করে। ২ মিনিট ৮ সেকেন্ডের এ বক্তব্যে ব্যারিস্টার মওদুদ ও বজলুল করীম চৌধুরী আবেদের মধ্যে কুশলবিনিময় ছাড়াও রাজনৈতিক বিষয়ে কথাবার্তা হয়। কুশলবিনিময়ের একপর্যায়ে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, এই বিএনপি দিয়ে হবে না। জিয়াউর রহমানের বিএনপি যদি করতে পার- এ সময় ছাত্রনেতা আবেদ বলেন, স্যার আপনি তো আমার মনের ক্ষুধা জানেন। আপনারা যেভাবে রাজনীতি করে আসছেন, আমি সেভাবেই রাজনীতি করতে চাচ্ছি। আমরা অসাম্প্রদায়িক রাজনীতিতে বিশ্বাস করি। ধর্ম আমি কতটুকু করব না করব, তা আমার ব্যক্তিগত বিষয়। যে যার ধর্মে বিশ্বাস করে, তাদের সম্মান করে রাজনীতি করতে চাই। 

এ সময় মওদুদ বলেন, অবশ্যই, অবশ্যই। সাবেক এই ছাত্রনেতা আরও বলেন, স্যার আপনাকে আগেই বলেছিলাম, জামায়াতের ব্যাপারে বিএনপি যতদিন সিদ্ধান্ত নিতে না পারবে, ততদিন বিশ্বের দরবারে বলেন, দেশে বলেন- কোথাও বিএনপি তার পজিটিভ ইমেজ তুলে ধরতে পারবে না। এ সময় মওদুদ বলেন, ঠিক কথা, ঠিক কথা। তুমি জানো, আমিও এটাই বিশ্বাস করি। 

এদিকে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গত বৃহস্পতিবার রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় খালেদা জিয়ার সামনেই আলোচকরাও বিএনপিকে নিয়ে সমালোচনা করেন। তাদের ভাষায়, জিয়াউর রহমানের রেখে যাওয়া আদর্শ বিএনপি ধরে রাখতে পারেনি। এ জন্য দলের নেতা-কর্মী সবারই লজ্জিত হওয়া উচিত। দলে যদি জিয়ার আদর্শ বাস্তবায়ন করা যায় তাহলেই  কেবল কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব। অন্যথায় অসম্ভব। 

বিকল্পধারা সভাপতি অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, দেশ ও জনগণের ভাগ্য পরিবর্তন করতে হলে আগে নিজেদের পরিবর্তন হতে হবে। সেক্ষেত্রে প্রত্যেককে জিয়াউর রহমানের মতো হয়ে উঠতে হবে। যদি ভুল করেন, তাহলে ইতিহাস কাউকেই ক্ষমা করবে না। বিএনপি নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ করে সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, দুই দিনের জন্য জিয়াউর রহমানকে স্মরণ করা ভুল ও আত্মহত্যার শামিল। দলকে ভালোবাসতে হবে। যার যার ভুল যদি সংশোধন করি তবে জাতীয়তাবাদী শক্তি আবার ঘুরে দাঁড়াবে। বিএনপিতে আত্ম-অনুসন্ধান প্রয়োজন বলেও মন্তব্য করেন তিনি। 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ বলেন, সামরিক এবং রাজনৈতিক উভয় ক্ষেত্রেই জিয়া ছিলেন অনুকরণীয়। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে, জিয়ার রেখে যাওয়া আদর্শ ধরে রাখতে পারেনি। এ জন্য নেতা-কর্মীদের কারও কারও লজ্জা হওয়া উচিত। দলে যদি জিয়ার আদর্শ বাস্তবায়ন করা যায় তাহলেই কেবল কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব। চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে বলেন, জিয়াউর রহমান জোট গঠন করেছিলেন। ওই সময় তার সঙ্গে যারা জোটে ছিলেন তাদের বিএনপিতে যোগ দিতে বলেছিলেন। সেই সময় আবদুল মান্নান ভূঁইয়া, কর্নেল আকবরসহ অনেকে বিএনপিতে যোগ দেন। তাই আমি ম্যাডামকে বলব, এখন ২০ দলের আর প্রয়োজন নেই। আপনি তাদের বলেন, তোমরা বিএনপিতে চলে আসো। যারা না আসবে তারা যুগপৎ আন্দোলন করবে। 

বিএনপির সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, বিএনপিতে ঘুমন্ত স্থায়ী ও নির্বাহী কমিটি রয়েছে। এ সময় ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা হাততালি দিয়ে তাকে সমর্থন জানান। ক্ষুব্ধ হয়ে তিনি ছাত্রদলের উদ্দেশে বলেন, তোমরাও কিছু করতে পার না। পহেলা বৈশাখের ঘটনায় তোমরা কোথায় ছিলে। জাফরুল্লাহ বলেন, ঈদের পর ১০ দিনের  মধ্যে নির্বাচনের মাধ্যমে সব কমিটি পুনর্গঠন করতে হবে। তৃণমূলের ভোটে যাকে নেতা বানাবে সে-ই হবে নেতা। এক ব্যক্তি যাতে একাধিক পদে না আসতে পারে সেদিকে নজর দিতে হবে।

http://www.bd-pratidin.com/first-page/2015/05/30/84335

চট্টগ্রাম-মংলা বন্দর ব্যবহারে অনুমতি পাচ্ছে ভারত India allowed to use Chittagang and Mangla Ports in Bangladesh!

India allowed to use Chittagang and Mangla Ports in Bangladesh!

চট্টগ্রাম-মংলা বন্দর ব্যবহারে অনুমতি পাচ্ছে ভারত

     
 চট্টগ্রাম-মংলা বন্দর ব্যবহারে অনুমতি পাচ্ছে ভারত

বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে সেভেন সিস্টারে পণ্য পরিবহনে চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহারে অনুমতি পাচ্ছে ভারত। দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন ঢাকা সফরের সময় এ-সংক্রান্ত 'লেটার অব এক্সচেঞ্জ' সই হওয়ার কথা রয়েছে। এর প্রস্তুতি হিসেবে আগামীকাল আনুষ্ঠানিকভাবে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক ডেকেছে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়। পররাষ্ট্র ও নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ভারতকে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহারে অনুমতি দেয়া নিয়ে একটি লেটার অব এক্সচেঞ্জ তৈরি হয় ২০১১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর। এতে ভারতের তত্কালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সালমান খুরশিদ এবং বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনির স্বাক্ষর করার কথা ছিল। তবে তিস্তার পানিবণ্টন নিয়ে সৃষ্ট জটিলতায় শেষ মুহূর্তে এ লেটার অব এক্সচেঞ্জে স্বাক্ষর করেনি বাংলাদেশ। ফলে এখন আবার নতুন করে লেটার অব এক্সচেঞ্জে সই করবে দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বিষয়টি নিয়ে বর্তমানে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় কাজ করছে।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১০ সালের জানুয়ারিতে দিল্লি সফরকালে ভারতকে চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহার করতে দেয়ার বিষয়ে তার সম্মতির কথা জানান। একই সঙ্গে তিনি নেপাল ও ভুটানের সঙ্গে বাংলাদেশের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপনে ভারতের ভূখণ্ড ব্যবহারের ইচ্ছাও প্রকাশ করেন। শেখ হাসিনা ও ভারতের তখনকার প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের বৈঠকের পর প্রকাশিত যৌথ ইশতেহারে বিষয়টি উল্লেখ করা হয়। পরের বছর সেপ্টেম্বরে মনমোহন সিং ঢাকা সফরে এলে ভারতকে চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহারে সম্মতিপত্র সই করার কথা ছিল বাংলাদেশের। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির আপত্তির কারণে ভারত শেষ মুহূর্তে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি সইয়ে অপারগতা প্রকাশ করলে বাংলাদেশও এ সম্মতিপত্র সইয়ের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসে। এ সময় ভারতীয় গণমাধ্যমে 'ভারত তিস্তায় পানি না দিলে বন্দর ব্যবহার করতে দেবে না বাংলাদেশ' শীর্ষক কিছু প্রতিবেদনও প্রকাশ হয়।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বণিক বার্তাকে বলেন, এশিয়ার পূর্ব ও পশ্চিমের মূল সংযোগস্থলে অবস্থান করায় বাংলাদেশ ভৌগোলিকভাবে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। আর ট্রানজিট-ট্রান্সশিপমেন্টের মূল কেন্দ্রস্থল হিসেবে এখনো তার পূর্ণ অর্থনৈতিক সুবিধা নিতে পারেনি বাংলাদেশ। ভারত দিয়ে শুরু হলে পরবর্তীতে এশিয়ার অন্য দেশগুলো বাংলাদেশকে কানেকটিং পয়েন্ট বিবেচনা করা শুরু করবে। তা সরাসরি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে। ফলে সড়ক, নদীপথ এবং রেল উন্নয়ন ও নতুন সংযোগ নিয়ে যে প্রকল্পগুলো নেয়া হয়েছে, তা ভবিষ্যতে বাংলাদেশের জন্য লাভজনক হবে। আর যেহেতু বাংলাদেশ-ভারত অমীমাংসিত ইস্যুগুলো সমাধান হওয়া শুরু করেছে, তাই বাংলাদেশও নিজেকে উদারতার দিক থেকে এগিয়ে রাখতে চায়।

জানা গেছে, চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দরের সঙ্গে ভারতের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপনে বেশকিছু প্রকল্প হাতে নেয়া হচ্ছে। ত্রিপুরার সাবরুমের সঙ্গে বাংলাদেশের রামগড়ের যোগাযোগ স্থাপনে ভারত ৭০ কোটি টাকা ব্যয়ে ফেনী নদীর ওপর সেতু নির্মাণ করছে। ফলে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে মাত্র ৭২ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করলেই ত্রিপুরার সাবরুমে প্রবেশ করতে পারবে ভারতীয় পণ্য। এছাড়া আখাউড়া থেকে আগরতলা পর্যন্ত রেলসংযোগ স্থাপন করা হচ্ছে। এটি নির্মিত হলে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে মালবাহী ওয়াগন আখাউড়া হয়ে সরাসরি ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলায় চলে যেতে পারবে। ত্রিপুরা ব্যবহার করে ভারতের সাতটি রাজ্যে চট্টগ্রাম বন্দরের মাধ্যমে সরাসরি আমদানি-রফতানি কার্যক্রম পরিচালনা করতে সক্ষম হবে।

এদিকে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথটিকে পুনরায় চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলওয়ে। এজন্য ৬৭৮ কোটি টাকার একটি সংশোধিত প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। এর মধ্যে সরকার দেবে ১২২ কোটি টাকা। বাকি ৫৫৬ কোটি টাকা ভারত সরকার বাংলাদেশকে ঋণ হিসেবে দেবে। রেল চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ায় মিটার গেজ রেলপথটি ২০০২ সাল থেকে বন্ধ আছে। এ অবস্থায় সাড়ে ৫১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এ রেলপথটিকে আরো ৯ কিলোমিটার বাড়িয়ে ভারতীয় সীমান্ত করিমগঞ্জ পর্যন্ত ডুয়াল গেজে রূপান্তরিত করে চালু করলে বাংলাদেশ ভবিষ্যতে আঞ্চলিক রেলওয়ে নেটওয়ার্ক এবং ট্রান্স এশিয়ান রেলওয়ে নেটওয়ার্ক উভয়ের সঙ্গেই যুক্ত হতে পারবে। ফলে আঞ্চলিক বাণিজ্য ও পর্যটন শিল্পের প্রসার ঘটবে। এ পথটি চট্টগ্রাম বন্দর থেকে আখাউড়া-সিলেট হয়ে কমিরগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে সরাসরি মেঘালয় রাজ্যে প্রবেশ করতে পারবে।

এদিকে বাগেরহাটের মংলা সমুদ্র বন্দরের সঙ্গে দেশের অন্যান্য অঞ্চলের যোগাযোগ বাড়ানোর লক্ষ্যে খুলনা থেকে মংলা পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণ করতে যাচ্ছে সরকার। এ লক্ষ্যে ২০১০ সালে একটি প্রকল্প নেয়া হয়। তবে বাস্তবায়ন বিলম্ব ও নতুন কিছু বিষয় যুক্ত হওয়ায় এটির নির্মাণব্যয় বেড়ে গেছে ২ হাজার ৮০ কোটি টাকা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় সংশোধিত আকারে 'খুলনা হতে মংলা পোর্ট পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ' শীর্ষক প্রকল্পটি অনুমোদন করা হয়। রেলওয়ের তথ্যমতে, খুলনা থেকে মংলা পর্যন্ত নতুন রেললাইন স্থাপনে সংশোধিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৮০১ কোটি টাকা। এর আগে ২০১০ সালে প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছিল ১ হাজার ৭২১ কোটি টাকা। চার বছরে প্রকল্পটির ব্যয় বেড়েছে ১২১ শতাংশ। সংশোধিত প্রকল্পের আওতায় ভারত সরকারের ঋণ (এলওসি) সহায়তা ২ হাজার ৩৭১ কোটি টাকা। বাকি ১ হাজার ৪৩০ কোটি টাকা বাংলাদেশ সরকার বহন করবে। ২০১৮ সালে প্রকল্পটি শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। এর আগে বাস্তবায়নকাল ধরা হয়েছিল ২০১৩ সাল পর্যন্ত।

প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে মংলা বন্দর থেকে রেলপথে খুলনা-বেনাপোল হয়ে কলকাতা পর্যন্ত রেল সংযোগ প্রতিষ্ঠা হবে। এতে মংলা বন্দর থেকে পণ্য খালাস করে সরাসরি কলকাতা নেয়া যাবে।

চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহার প্রসঙ্গে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, ইস্যুটি পুরনো। তবে গত বৃহস্পতিবার থেকে বেশ তড়িঘড়ি করেই নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় কাজ শুরু করেছে। এ নিয়ে শিগগির একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সব নথিপত্র আগেই ঠিক হয়ে রয়েছে। তবে আন্তঃমন্ত্রণালয়ে অন্যান্যদের মতামত নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, ভারতের মূল ভূখণ্ড থেকে ত্রিপুরার দূরত্ব ১ হাজার ৬৫০ কিলোমিটার। আর বাংলাদেশের ওপর দিয়ে গেলে দূরত্ব ৩৫০ কিলোমিটারে নেমে আসে। পণ্য পরিবহনে সময় ও ব্যয় কমে আসার কারণে বরাবরই ট্রানশিপমেন্ট আগ্রহী ভারত।

http://www.bonikbarta.com/2015-05-30/news/details/38386.html